সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০২২

কলমাকান্দায় অপহরন মামলায় আসামির তালিকায় মৃত ব্যক্তি

কলমাকান্দা (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি :

- Advertisement -

নেত্রকোণার কলমাকান্দা থানায় অপহরন ও সহায়তা করার অপরাধ মামলায় মৃত ব্যক্তির নাম দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বাদী (৬২) তার নবম শ্রেণির পড়ূয়া মেয়েকে (১৬) অপহরনের দায়ে মো. জুয়েল মিয়াকে (৩২) প্রধান আসামি ও এ কাজে সহায়তাকারী হিসেবে আরো পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা দায়ের করেন ওই মেয়ের বাবা।

- Advertisement -

এ মামলায় অন্যান্য আসামিরা হলেন- প্রধান আসামির চার ভাই কাউসার মিয়া (৪০), মোবারক (৩৫), মিনারুল (৩০) ও জামিরুল (২৫) এবং তাদের বাবা আ. রশিদ (৬৫)। তারা সকলেই উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের পাঁচকাটা গ্রামের বাসিন্দা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আসামিগণের বাবার আ. রশিদ প্রায় ১৫ বছর পূর্বেই মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তির নাম মামলায় থাকাতে স্থানীয়দের মাঝে দেখা দিয়েছে কৌতুহল এবং অপহরনের জন্য সমালোচনারও ঝড় ওঠেছে।

- Advertisement -

আজ শুক্রবার থানার ওসি মো. আবদুল আহাদ খান অপহরন মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন, অপহৃতাকে উদ্ধারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। কিভা‌বে কে‌ান পথ দি‌য়ে গি‌য়ে‌ছে তা সনাক্ত করা হ‌য়ে‌ছে। একা‌জে ব‌্যবহৃত মোটর সাইককেল জব্দ কর‌া গে‌ছে। অ‌চি‌রেই আটক করা সম্ভব হ‌বে। বাদী যদি মৃত ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে থাকেন তা তদন্তের সময় বের হবে। সে মোতবেক চার্জশীট দেওয়া হবে।

মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে , ভিকটিম (বাদীর মেয়ে) কলমাকান্দা সদরে একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও উপজেলা শিল্পকলা একাডেমিতে গান বাজনা করেন। জুয়েল মিয়া তিন সন্তানের জনক ও গান বাজনা অনুষ্ঠানের ভিডিও ধারণ করেন। এ কারণে দুজনে পরিচিত থাকায় ভিকটিমের পরিবারে যাতায়াত ছিল। জুয়েল মিয়া প্রায় সময় কু অঙ্গভঙ্গি ও আচরন এবং মনভুলানোর কথাবার্তা বলে ভিকটিমকে উত্যক্ত করতেন। বাধা নিষেধ সত্ত্বেও কর্ণপাত না করে ভিকটিমের প্রতি অসদাচরণ ও বেপরোয়া হয়ে ওঠেন প্রধান আসামি। বিয়ে না দিলে ভিকটিমকে অহরনের হুমকি দেন জুয়েল মিয়া। প্রধান আসামির ভাইদেরকে বিষয়টি অবগত করলেও তারা কোন সমাধান দেন নাই বরং বিয়ের দেয়ার জন্য তারাও চাপ দিতে থাকেন ভিকটিমের পরিবারকে ।

- Advertisement -

স্থানীয় সা‌বেক ইউপি সদস্য ও পাঁচকাটা গ্রা‌মের বা‌সিন্দা মা‌নি‌ক মিয়া সাংবাদিকদের জানান, স্কুল পড়ূয়া মেয়ের সাথে এ ধরনের কাজ করে থাকলে তা অবশ্যই নিন্দীয় ও এর সঠিক বিচার চাই। তবে মামলার আসামি আ. রশিদ অনেক আগেই মারা গেছেন। মৃত মানুষকে আসামি করায় গ্রামের মানুষের মধ্যে কৌতুহল সৃষ্টি হয়েছে। জুয়েলের এমন কর্মকান্ডকে গ্রামের লোকজন ব্যাপক নিন্দা ও সমালোচনা করছে।

মামলার বাদী সাংবাদিকদের জানান, আস‌া‌মি‌দের বাবা মৃত বিষয়‌টি জানা ছিল না।

গত ২৯ জুন (বুধবার ) সকালে ভিকটিম জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য বাড়ি থেকে বের হন। বাড়িতে ফিরে না আসায় খোঁজাখুঁজি করে বাদী জানতে পারেন, উপজেলা পরিষদের মোড় হতে ভিকটিমের ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে অটোরিকশায় (সিএনজি) তুলে অপহরন করেন প্রধান আসামি জুয়েল মিয়া।

আরো পড়ুন: দুর্গাপুরে ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা অনুষ্ঠিত

- Advertisement -
এই জাতীয় আরও সংবাদ
- Advertisment -

সর্বশেষ সংবাদ

- Advertisment -