Tuesday, January 31, 2023

বিষ মেশানো খাবার খেয়ে মুহুর্তেই ৩০০ হাঁসের মর্মান্তিক মৃত্যু

এ কেমন শত্রুতা?

- Advertisement -

এ কেমন শত্রুতা? পতিত জমিতে ছিটিয়ে ফেলে রাখা বিষ মেশানো খাবার (গম) খেয়ে মুহুর্তেই দুই হাঁস চাষির মারা গেল ৩শ হাঁস। এতে দরিদ্র চাষিদের মাথায় হাত পড়েছে।

- Advertisement -

ঘটনাটি ঘটেছে ৪ ডিসেম্বর রোববার সকালে কেন্দুয়া উপজেলার মাসকা ইউনিয়নের মাসকা বাজার সংলগ্ন আমবাগান নামক স্থানে। ক্ষতিগ্রস্থ দুই হাঁস চাষির মধ্যে রয়েছেন মাসকা পশ্চিম পাড়া গ্রামের মৃত আজিম উদ্দিনের ছেলে সেকান্দর মিয়া ও মৃত হাসেম মিয়ার ছেলে সোলেমান মিয়া। ক্ষতিগ্রস্থ দুই কৃষক কান্নাজড়িত কন্ঠে অভিযোগ করে বলেন, একই গ্রামের বাদল মিয়া ও বাক্কি মিয়ার সাথে শেয়ারে হাঁস কেনা বেঁচার ব্যবসা করতেন। এক পর্যায়ে তাদের সাথে বনিবনা না হওয়ায় শেয়ার ব্যবসা থেকে সরে যান, বাদল ও বাক্কি। সেকান্দর ও সুলেমানের অভিযোগ তারা সরে গিয়ে তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার চেষ্ঠা চালিয়ে আসছিল। ইউপি নির্বাচন নিয়েও তাদের সঙ্গে কিছু বিরোধ ছিল।

রোববার সকালে আমবাগান এলাকায় ভাড়া নেয়া হাঁসের খামার থেকে দুই জনের হাঁসের পালক নিয়ে খাবার খাওয়াতে বের হন সুলেমান ও সেকান্দর। দুজনের হাঁসের পালকে ছিল ৪শ হাঁস। খামারের সামনেই পতিত জমি। হাঁসগুলো সেখানে নেমেই ছড়ানো ছিটানো গম খেতে থাকে। এই গমে বিষ যে মেশানো ছিল তা খাবার আগে বুঝতে পারেননি সেকান্দর ও সুলেমান। পরে পাশের পুকুরের পানিতে নামতেই একে একে হাঁস মরতে শুরু করে। সেকান্দর ও সুলেমান জানান কিছু বুঝে উঠতে না উঠতেই মুহুর্তের মধ্যেই ৩শ হাঁস চোখের পলকে মারা যায়। জীবিত ১শ হাঁসের অবস্থাও আশংকাজনক। সেকান্দর ও সুলেমান বলেন, বাদল ও বাকী পরিকল্পিত ভাবে গমে বিশ মিশিয়ে হাঁস মারার জন্য পতিত জমিতে ছিটিয়ে ফেলে রেখেছে। বাক্কীর ষড়যন্ত্রে বাদল কীটনাশক কিনে গমে মিশিয়েছে এ তথ্য তারা পেয়েছেন। তারা এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। তবে অভিযোগ অস্বিকার করে বাদল ও বাক্কী মিয়া বলেন, এটি এক ধরনের ষড়যন্ত্র। গমে বিষ মিশিয়ে পতিত জমিতে ফেলে রেখেছি এ কথা কেউ প্রমাণ করতে পারবেন না।

- Advertisement -

কেন্দুয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) মোহাম্মদ আলী জানান, বিষক্রিয়ায় হাঁসগুলোর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, মৃত কয়েকটি হাঁস ও ছিটানো গম কুড়িয়ে সংরক্ষন করে রাখার জন্য হাঁস চাষিদের বলেছি। তারা লিখিত অভিযোগ দিলেই মামলা হবে। তখন হাঁসগুলো ও গম পরীক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হবে। মাসকা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম বাঙ্গালী বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। এ কেমন শত্রæতা? তিনি এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের দাবী জানান।

আরও পড়ুন: গৌরীপুরে চান্দের সাটিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক নির্বাচন অনুষ্টিত

- Advertisement -
সম্পর্কিত সংবাদ
- Advertisment -

সর্বশেষ সংবাদ